শিল্পী এ. এইচ. ঢালী তমালের একক প্রদর্শনী

সাদা-কালোর চারণভূমি

 

grazing_ground।শিবানী কর্মকার শিলু। ফয়েজ আহমেদ, যিনি একাধারে সাংবাদিক, লেখক, ছড়াকার, সংগঠক। আবার সাংস্কৃতিক অঙ্গঁনের বিভিন্ন শাখার বিভিন্ন বিষয়ের উদ্দ্যোক্তা তিনি। এমনকি বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রা সহ নানাবিধ বাঙালি সংস্কৃতি চর্চার উত্থানপর্বে তাঁর ভূমিকা ছিল অপরিসীম। অসাম্প্রদায়িকতা, বৈষম্যহীনতার বিরুদ্ধে লড়াই করে গেছেন সারাজীবন। সেই সঙ্গে সুস্থ রাজনৈতিক চর্চায়ও তাঁর ভূমিকা ছিল অপরিসীম। বাংলাদেশে পূর্ণাঙ্গ ব্যক্তিমালিকানাধীন আর্ট গ্যালারির পথিকৃৎ ছিলেন তিনি।

১৯২৮ সালে ২মে তাঁর জন্ম, মৃত্যু ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১২। তাঁর জন্ম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে তাঁরই একান্ত চেষ্টায় গড়ে ওঠা শিল্পাঙ্গন গ্যালারিতে ১মে ২০১৫, তে আয়োজিত হয় শিল্পী এ. এইচ. ঢালী তমালের প্রিন্ট এন্ড ড্রয়িং এক্সিবিশন ‘গ্র্যাজিং গ্রাউন্ড’। এটাই শিল্পী তমালের প্রথম একক প্রদর্শনী। প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন প্রখ্যাত শিল্পী রফিকুন নবী। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্প সমঝদার রুবানা হক। আলোচক হিসেবে ছিলেন শিল্পী নিসার হোসেন। সভাপতিত্ব করেন সাবেক পররাষ্ট্র সচিব রাষ্ট্রদূত ওয়ালিউর রহমান।

প্রদর্শনীতে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট্য শিল্পী আবুল বারাক আলভী, চিত্র সমালোচক মইনুদ্দীন খালেদ, শিল্পী ড: রশিদ আমিন সহ আরও অনেকে। অতিথিদের সকলেই ফয়েজ আহমেদ সম্পর্কে তাঁদের স্মৃতিচারণ করেন। পাশাপাশি এ.এইচ. ঢালী তমালের কাজ নিয়ে কথা বলেন।

ছাপচিত্রের আদি নিদর্শন হিসেবে সাদা-কালোয় চিত্রিত কাঠ খোদাই অধিক পরিচিত। সেই আদি রূপ শিল্পীর কাজে বিদ্যমান। ছাপচিত্র ধারায় রঙিন ছাপচিত্র এখন বেশ আলোড়িত। রঙিন ছাপচিত্রে পুরো শিল্পী সমাজ যেখানে ঝুঁকে পরেছে সেখানে অধিকাংশ কাজে ছাপচিত্রের পুরানো সেই ধারা বজায় রেখে শিল্পী তমাল নিজস্ব একটি বৈশিষ্ট্য স্থাপন করেছেন। সেই সঙ্গে ‘গ্র্যাজিং গ্রাউন্ড’ অর্থাৎ চারণভূমি শিরোনামের প্রর্দশনীটির প্রতিটি কাজ জুড়ে উপস্থাপন করা হয়েছে গ্রাম বাংলার চিরন্তন চিত্রপট। গ্রামীন পরিবেশে বেড়ে উঠা শিল্পী তমালের ছোটবেলা কেটেছে প্রকৃতির খুব কাছাকাছি। আবার গ্রামীণ জীবনের নানা টানাপোড়েন তিনি দেখে এসেছেন সেই শৈশব থেকেই। গ্রামীণ জীবনের সঙ্গে খুব বেশি সর্ম্পকিত পশুর মধ্যে ছাগল বেশ পরিচিত, বেশ চেনা। আর তাই হয়তো ছাগল তার চিত্রকর্মে অধিক স্থান পেয়েছে। শিল্পকর্মের বেশ বড় একটা অংশ জুড়ে রয়েছে ছাগলের ঝাঁক। শিল্পে নিজস্ব একটা বোধ যেমন থাকা প্রয়োজন তেমনি হাতের দক্ষতাও অনেক সময় কাজের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। শিল্পী বিভিন্ন আঙ্গিকে ছাগল এঁকেছেন সুনিপুন দক্ষতায়। ছাপচিত্রের পাশাপাশি তার অঙ্কন চিত্রগুলোও লক্ষ্যনীয়।

FacebookTwitterGoogle+Google GmailPinterestLinkedIn

One comment on “সাদা-কালোর চারণভূমি
  1. Reza K. Chowdhury says:

    Nice write up Shilu! :)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

ফেসবুকে চিত্রম

সর্বশেষ সংবাদ

মাসিক আর্কাইভ

নিউজলেটার পেতে সাবসক্রাইব করুন

     Read More »