বিন্দু বিন্দু জ্বলা অন্ধকার

lubna_charya

শিল্পী লুবনা চর্যা

।উম্মে সোহাগ। একাকীত্বের হাত ধরে পথ চলে আমাদের ব্যস্ততম জীবন। আধুনিকতার বেড়াজালে নিঃসঙ্গ ব্যক্তি সঙ্গী খুঁজে ফেরেন অনবরত। ‘সঙ্গী’ ব্যক্তি বিশেষে ধরা দেয় তার মতো করে। একজন শিল্পীর সার্বক্ষণিক সত্য-সঙ্গী শিল্পমাধ্যম। যার মাধ্যমে উঠে আসে তার চিন্তা, চেতনা, ভাবনা, আবেগ, অভিজ্ঞতা ও উপলব্ধি। ব্যক্ত হয় বলা না-বলা বহু কথা।

গত ২৪ এপ্রিল ধানমন্ডির আলিয়ঁস ফ্রঁসেজে তরুণ শিল্পী লুবনা চর্যার একক চিত্র প্রদর্শনী উদ্বোধিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কবি কামাল চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন শংকর সাঁওজাল এবং সাংবাদিক একেএম জাকারিয়া। প্রদর্শনীটি চলে ৬মে পর্যন্ত। আলিয়ঁস ফ্রঁসেজের গ্যালারি জুম-এ শিল্পীর ১৮টি চিত্রকর্ম নিয়ে এই আয়োজন। শিরোণাম ফায়ারফ্লাই।

ক্যানভাসে অ্যাক্রেলিক চিত্রের পাশাপাশি ছিল তেল রং ও মিশ্র মাধ্যমে আঁকা চিত্র। ‘ইনসাইডার’ শিরোণামের একটি হাউস শো-এর পর দ্বিতীয়বারে ফায়ারফ্লাই। এই দুইয়ের নামকরণের মধ্যে যোগাযোগ খুঁজে পাই। আত্মলোক চরাচরের প্রতিচ্ছবির পর যেন বিন্দু বিন্দু আলোকময় ঘটনার পরের অন্ধকারের গভীরতাকে তুলে ধরতে চেয়েছেন শিল্পী।

লুবনার চিত্র রচনা অনেকটা ব্যক্তিগত ডায়রি লেখার ঢং-এ। যদিও তা অপঠিত থাকে না। দর্শকের কাছে তুলে ধরেন তাঁর অভিব্যক্তি। আধুনিকতা, নাগরিকতা, বাস্তবতায় শিল্পী যে ধরনের উপলব্ধির মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করেন, যে সকল ঘটনা তার ব্যক্তি জীবনের সাথে জড়িয়ে থাকে, সে সকলের অনুরণিত রূপ দেখি চিত্রপটে।

রূপসাপাড়ের মেয়ে লুবনা। জন্ম ও বেড়ে ওঠা খুলনায়। পড়ালেখাও খুলনাতেই। নিয়েছেন ইংরেজি সাহিত্যে উচ্চ শিক্ষা। বর্তমানে বসবাস করছেন ঢাকায়। কাজ করছেন একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থায়। ছবি আঁকায় কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেননি তিনি। তবে বন্ধুমহলের একটি বিরাট অংশ চিত্রশিল্পী। বোধ করি, কোনোভাবে অনুপ্রাণিত হয়েছেন শিল্পী বন্ধুদের দ্বারা। নিজস্ব কল্পনার দৃশ্যগত রূপ দেওয়ার আকাঙ্ক্ষার সূত্রপাত সম্ভবত এখান থেকেই। যদিও তার শিল্পী মননের আত্মপ্রকাশ দেখেছি আরও আগে। কাব্য রূপে। শব্দের বুনন বয়ান নিয়ে পাঠকের কাছে এসেছিল ‘জিওগ্রাফি ইন এ জু’ নামে কবিতার বই নিয়ে। পরে আরও দুটি কবিতার বই শয়তানের অভিনব কারখানা এবং পপকর্ন নিয়ে হাজির হন পাঠকের সামনে। লুবনা শব্দকে মুক্তি দিয়েছেন চিত্রে আবার চিত্রের জন্ম হয়েছে কবিতায়। এই দুইয়ের ব্যঞ্জনে সমসাময়িক ধারনাগত চিত্রচর্চার ধারাতে স্বতন্ত্র মাত্রায় উপস্থাপনা লুবনার চিত্রকর্ম।

লুবনার চিত্রের বিষয়বস্তু উঠে এসেছে নিজেকে দীর্ঘস্বাস থেকে মুক্ত করার অভিপ্রায়ে। মানুষের নির্মম এবং নির্লজ্জ আচরণ, স্বভাব এবং নির্লিপ্ততা লুবনাকে পীড়া দেয়। সামাজিক অস্থিরতা, অবক্ষয় এবং ভ্রান্তির মায়াজালে ব্যথিত লুবনা দীর্ঘস্বাস ফেলেন গোপনে; ডায়রীর পাতায়, ক্যানভাসে। ফলে চিত্রপটে উঠে এসেছে হারিয়ে যাওয়া সময়, দুঃসময়। ব্যঙ্গ করেছেন সমাজ কাঠামোকে। প্রবোধ দিয়েছেন নিজেকে শূন্যে মেলে দিয়ে।

হোয়েন এ পার্সন গেটস জিরো ওয়েট, ব্যাড টাইম, স্যাড টাইম, ফেসবুক এডিক্ট, ফ্রেন্ড, এম্পটি পোর্ট্রেট, উইংস অব টারটলস, ড্রিমস এন্ড ড্রিমস ইটার, ব্রেক আপ শিরোণামসহ আরও কিছু মজার শিরোণামের দেখা মিললো। ব্রেক আপ শিরোণামের চিত্রে একটি শূন্য বিছানায় দুটি পাশাপাশি বালিশ। মাঝখানে একটি লাল গোলাপ। ছবিটি বেশ সিম্বলিক। তবে সোজাসাপ্টা উপস্থাপনা। আবার ব্যাড টাইম, স্যাড টাইম চিত্রটিতে একটি আধুনিক বেশভূষার নারীকে পাওয়া গেল, যে কিনা চার হাত পায়ে চলনরত অবস্থায় পিঠে বহন করছে একটি দাঁড়কাক। যার আকার নারী দেহের প্রায় দ্বিগুণ। দড়ির সিল্যুড ফর্ম দিয়ে আঁকা একটি পোর্ট্রেট, গলায় একটি গোলাপ টাই। কর্পোরেট শ্রেণির ফাঁপা চিত্ররূপ। ব্যাঙ্গাত্মক এই চিত্রটি লাল রং এর ব্যাকগ্রাউন্ডে আঁকা। আরেকটি ব্যাঙ্গাত্মক চিত্র ফেইসবুক এডিক্ট। চিত্রটিতে দর্শককে এওয়ার করার চেষ্টা আছে বুঝি বা। আবার মনে হয়, শিল্পী নিজেকেই কি ফেসবুক এডিক্ট হিসেবে উপস্থাপন করেছেন?

শিল্পী লুবনা চর্যার বিষয়বস্তুর উপাস্থাপনা অত্যন্ত সরল। স্বাভাবিক বিচরণ পাওয়া যায় তার চর্চার মধ্যে। বিষয়ের সাথে মাধ্যম ব্যবহারের পাশাপাশি তুলি ব্যবহারের সামঞ্জস্যতা প্রশংসার যোগ্য। তাঁর এই সহজ সরল উপস্থাপনা দীর্ঘ পথের যাত্রী হবে, এমনটাই আশা করি।

FacebookTwitterGoogle+Google GmailPinterestLinkedIn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

ফেসবুকে চিত্রম

সর্বশেষ সংবাদ

মাসিক আর্কাইভ

নিউজলেটার পেতে সাবসক্রাইব করুন

     Read More »