খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা ইনস্টিটিউটের তৃতীয় বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী

khulna02রকিব হাসান। ছবির আলোচনা প্রসঙ্গে বোদলেয়ার বলেছিলেন- ‘রেখা এবং রঙ দুই-ই ভাবনা-চিন্তা ও স্বপ্নের মধ্যে আমাদের নিয়ে যায়। তারা যে সুখ দেয় তা অন্য ধরনের, কিন্তু তা ছবির বিষয়ের সমান এবং তার থেকে একেবারে আলাদা।’

কবির এই বাণীর প্রতিফলন দেখা গেলো চারুকলা ইনস্টিটিউট, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী ২০১৫’তে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিল্পানুরাগী ও দর্শকেরা স্বপ্নের মধ্যে ছিল ০৫-০৯ জুলাই ২০১৫ পর্যন্ত আয়োজিত এই প্রদর্শনীতে। প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান, চারুকলা ইনস্টিটিউটের পরিচালক, ছাপচিত্র মাধ্যমের অন্যতম শিল্পী প্রফেসর ড. মোঃ আমিরুল মোমেনীন চৌধুরী এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভাস্কর শেখ সাদী ভূঁঞা।

প্রদর্শনীতে শিল্পকর্মের সংখ্যা ছিল প্রায় দুই শতাধিক। তিনটি ডিসিপ্লিনের মোট ২২ জন শিল্পীকে পুরষ্কৃত করা হয়। তিন ডিসিপ্লিনের মধ্যে সেরা কাজটিকে প্রদান করা হয় ‘শশীভূষণ পাল গ্রান্ড অ্যাওয়ার্ড’। এটি পেয়েছেন প্রিন্ট মেকিং ডিসিপ্লিনের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র চয়ন বিশ্বাস। এছাড়া প্রতি ডিসিপ্লিনে মোট ৭টি করে পুরষ্কার দেয়া হয়। পুরষ্কার প্রাপ্তদের মধ্যে ‘মিডিয়া বেস্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন- মাহামুদুল হাসান (৪র্থ বর্ষ, ড্রইং এন্ড পেইন্টিং ডিসিপ্লিন), অপূর্ব কুমার সরকার (৪র্থ বর্ষ, প্রিন্ট মেকিং ডিসিপ্লিন) ও ‘ভাস্কর আব্দুর রাজ্জাক মিডিয়া বেস্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন জায়েদ আল মাহমুজ (৪র্থ বর্ষ, ভাস্কর্য ডিসিপ্লিন)।

এ বছরে নব প্রবর্তিত তিনটি স্মৃতি পুরষ্কারের মধ্যে এস.এম. সুলতান মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন ড্রইং এন্ড পেইন্টিং ডিসিপ্লিনের ৩য় বর্ষের ছাত্র সজল মিশ্র , শফিউদ্দীন আহমেদ মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন প্রিন্টমেকিং ডিসিপ্লিনের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র হোসনা ইমদাদ স্বর্ণা এবং ভাস্কর নভেরা আহমেদ মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন ভাষ্কর্য ডিসিপ্লিনের ৩য় বর্ষের ছাত্র শিমুল বিশ্বাস । এছাড়া প্রতি বর্ষে শ্রেণী শ্রেষ্ঠ পুরষ্কার পেয়েছেন ড্রইং এন্ড পেইন্টিং ডিসিপ্লিন থেকে ৪র্থ বর্ষের তন্ময় বাগচী, ৩য় বর্ষের জয় কুমার ভৌমিক, ২য় বর্ষের অলিক রপ্তান , ১ম বর্ষ ২য় টার্মের বনি আমিন, ১ম বর্ষ ১ম টার্মের বিচিত্র দাস ।

প্রিন্ট মেকিং ডিসিপ্লিন থেকে ৪র্থ বর্ষের স্মৃতি মন্ডল, ৩য় বর্ষের মোঃ কাওসার শিকদার , ২য় বর্ষের ফারজানা আহমেদ ইভা, ১ম বর্ষ ২য় টার্মের শিলাদিত্য পাইক, ১ম বর্ষ ১ম টার্মের মেহেদি আহমেদ সৈকত।

ভাস্কর্য ডিসিপ্লিন থেকে ৪র্থ বর্ষের মোঃ শাহীন আলম, ৩য় বর্ষের সৈয়দ ফেরদৌস, ২য় বর্ষের নাফিজুল ইসলাম, ১ম বর্ষ ২য় টার্মের দেবাংশু কুমার গাইন, ১ম বর্ষ ১ম টার্মের মোঃ সুমন জমাদ্দার।

পুরষ্কারপ্রাপ্ত শিল্পকর্ম ছাড়াও বেশ কিছু ভাল কাজ ছিল প্রদর্শনীতে। বার্ষিক প্রদর্শনী- চারুকলা শিক্ষার্থীদের কাছে এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। এর মাধ্যমে সৃষ্টি হয় নতুন ধরনের, ভিন্ন গড়নের কাজ। একাডেমিক রীতি বজায় রেখেও শিক্ষার্থীরা নিজস্ব রুচি ও অভিব্যক্তি প্রকাশের প্রথম প্রয়াস পায় এই ধরনের প্রদর্শনীতে। এমনকি বছরান্তে নিজেদের শৈল্পিক দক্ষতা ও কাজের মূল্যায়ন করার প্লাটফর্ম হতে পারে বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী।

ড্রইং এন্ড পেইন্টিং, প্রিন্ট মেকিং ও ভাস্কর্য- এই তিনটি ডিসিপ্লিন নিয়ে ০১ জুন, ২০০৯ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা ইনস্টিটিউটের যাত্রা শুরু। ১ম ও ২য় বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী হয় যথাক্রমে ২০১২ ও ২০১৩ সালে। আর ৩য় বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী হয়ে গেল এ বছর ৫ থেকে ৯ জুলাই। চারুকলা ইনস্টিটিউট, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক চারুকলা প্রদর্শনী আগামীতে আরও সমৃদ্ধ ও শৈল্পিকভাবে হবে এমন প্রত্যাশাই রাখি।

FacebookTwitterGoogle+Google GmailPinterestLinkedIn

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

ফেসবুকে চিত্রম

সর্বশেষ সংবাদ

মাসিক আর্কাইভ

নিউজলেটার পেতে সাবসক্রাইব করুন

     Read More »